মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
উপজেলা ইউ,বি,সি,সি,এ লি: (বি,আর,ডি,বি)

বি,আ,ডি,বি , ইউ,বি, সি,সি,এ পজীপ

প্রকল্প কর্মকর্তা

বৃত্তহীন সমিতি গঠন, ঋণ বিতরণ আদায়

প্রশিক্ষন ও অন্যান্য সামাজিক কাজ

  • কী সেবা কীভাবে পাবেন
  • প্রদেয় সেবাসমুহের তালিকা
  • সিটিজেন চার্টার
  • সাধারণ তথ্য
  • সাংগঠনিক কাঠামো
  • কর্মকর্তাবৃন্দ
  • তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা
  • কর্মচারীবৃন্দ
  • বিজ্ঞপ্তি
  • ডাউনলোড
  • আইন ও সার্কুলার
  • ফটোগ্যালারি
  • প্রকল্পসমূহ
  • যোগাযোগ

বিআরডিবি প্রদত্ত সেবাসমুহ কিভাবে পাবেনঃ

ক্ষুদ্র এবং মাঝারি কৃষকগণ কৃষক সমবায় এবং মহিলারা মহিলা সমবায় সমিতির সদস্য হতে পারেন।

ক্ষুদ্র কৃষক ও প্রান্তিক চাষী এবং বিত্তহীন পুরুষ ও মহিলারা যথাক্রমে পুরুষ ও মহিলা দলের সদস্য হতে পারেন ।

গ্রামে স্থায়ীভাবে বসবাস করেন, কায়িক পরিশ্রমের উপর নির্ভরশীল, স্থায়ী আয়ের অন্য কোন উৎস নেই, অন্য কোন সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত নয় বা অন্য কোন প্রতিষ্ঠানের নিকট ঋণী নয় এমন ১৮ থেকে ৫৫ বছরের যে কোন পুরুষ ও মহিলা বিত্তহীন পুরুষ/মহিলা দলের সদস্য হতে পারেন।

    সদস্যপদ গ্রহনের পর দলের যাবতীয় আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন সাপেক্ষে ১ জন সদস্য ৩ মাসের মধ্যে ঋণ পেতে পারেন।

    কোন রকম জামানত ছাড়াই ২০০৩ এর  ঋণ নীতিমালার আলোকে ঋণ প্রদান করা হয়।

উপকারভোগীরা সামাজিক সচেতনতা ও দক্ষতা বৃদ্ধি কল্পে আয়বর্ধক কর্মকান্ডের উপর প্রশিক্ষণ পেয়ে থাকেন।

আয় বৃদ্ধিমূলক কর্মকান্ড বাস্তবায়নের জন্য উপকারভোগী সদস্য ৫,০০০/- টাকা থেকে ২৫,০০০/- টাকা পর্যন্তু ঋণ পেয়ে থাকেন।

     ঋণের যারতীয় কাগজপত্র উপজেলা বিআরডিবি দপ্তর থেকে সরবরাহ করা হয়ে থাকে।

     উপকারভোগী সদস্যগণ ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র সঞ্চয় জমার মাধ্যমে নিজস্ব পুঁজি গঠন করে থাকেন।

     পরিবারের ২ জন সদস্য (১ জন পুরুষ ও ১ জন মহিলা) পৃথক পৃথক ভাবে পুরুষ ও মহিলা দলের সদস্য হতে পারেন।

 বিআরডিবি’র সেবা সম্পর্কে বিস্তারিত জানার জন্য উপপরিচালক / উপজেলা পল্লী উন্নয়ন অফিসারের সাথে যোগাযোগ করা যেতে পারে।

এ কার্যালয় থেকে যে সব সেবা ও সহযোগিতা দেয়া হয়ঃ

 

(ক) মূল কর্মসুচীসহ অন্যান্য সকল প্রকল্প/কর্মসুচী । যেমন-আবর্তক (কৃষি) ঋণ, সমন্বিত দারিদ্র বিমোচন কর্মসুচী (সদাবিক),পল্লী প্রগতি প্রকল্প (পপ্রপ্র), অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের পোষ্যদের প্রশিক্ষণ ও আত্ম-কর্মসংস্থান কর্মসুচী, পিআরডিপি-২ এবং একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প এর আওতায় সমিতি/দল গঠন সম্পর্কিত সকল প্রকার তথ্য সরবরাহ করা হয় ।

(খ)  সোনালী ব্যাংক ঋণ,আবর্তক (কৃষি) ঋণ সহ সকল প্রকারের ঋণ বিতরণ সম্পর্কিত তথ্য সরবরাহ করা হয় ।

(গ) সচেতনতা বৃদ্ধি, নেতৃত্বের বিকাশ, ব্যবস্থাপনা, হিসাব ব্যবস্থাপনা সহপেশাভিত্তিক দক্ষতা উন্নয়ন মুলক প্রশিক্ষণ প্রদান সম্পর্কিত তথ্য সরবরাহ করা হয় ।

(ঘ)  বৃক্ষরোপন ও স্যানিটেশন সম্পর্কে উদ্বুদ্ধকরন কর্মকান্ডে সহযোগিতা ৷

(ঙ)  নারী ও শিশু নির্যাতন ও যৌতুক প্রথার বিরুদ্ধে সচেতনতা বৃদ্ধিতে সহায়তা ।

(চ)  কৃষি উপকরন সংগ্রহ, সরবরাহ ও ব্যবহারে সহযোগিতা ।

(ছ)  জেলার আওতায় উপজেলা সমুহ থেকে প্রদত্ত বিভাগীয় সেবার তথ্য প্রদান ।

(জ)  জেলা অথবা জেলার আওতাধীন উপজেলা পর্যায়ের যে কোন অভিযোগের প্রতিকার বিধান ।

(ঝ) এই অফিসে সকল কর্মকর্তা/কর্মচারী সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে ভাল আচরন করতে অঙ্গীকারবদ্ধ ।

 

উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তার(ইউআরডিও) এর  কার্যালয়ের মাধ্যমে যে সব সেবা ও সহযোগিতা প্রদান করা হয়ঃ

(ক) প্রাথমিক সমিতি/ দল (পুরুষ/মহিলা) গঠন, ঋণ গ্রহনে পরামর্শ প্রদান ও এতদসংক্রামন্ত যাবতীয় তথ্য এবং ফরম সরবরাহ ।

(খ) সদস্যদের শেয়ার ও সঞ্চয় আমানত সংগ্রহের মাধ্যমে নিজস্ব পূঁজি গঠনে সহায়তাকরণ।

(গ) সমিতির সদস্যগণকে সহজ শর্তে কৃষি উৎপাদন ও কৃষি উপকরণের জন্য (সার,বীজ,কীটনাশক এবংসেচ যন্ত্রপাতি) ঋণ প্রদান,(১) সোনালী ব্যাংকের মাধ্যমে কৃষি ঋণ ও (২) আবর্তক ক্ষুদ্র  ঋণের ব্যবস্থাকরন।

     (ঙ) আনুষ্ঠানিক সদস্যদের নিবন্ধনের পরপরই এবং অনানুষ্ঠানিক দল গঠনের ৮(আট) সপ্তাহ পর সদস্যদের ঋণ প্রদান করা হয়।

     (ঘ) বিভিন্ন প্রকল্প/কর্মসূচির আওতায় অনানুষ্ঠানিক দল গঠন এবং উৎপাদনমূখী ও আয়বৃদ্ধিমূলক কর্মকান্ডের জন্য ঋণ প্রদান ।

     (চ) সমবায়ীদের উৎপাদিত শস্যের বাজারজাতকরনের সুযোগ সৃষ্টি এবং ন্যায্য মূল্য প্রাপ্তিতে সহায়তা।

  (ছ) নারীর ক্ষমতায়ন ও নারী নেতৃত্ব বিকাশে সচেতনতা বৃদ্ধি, নারী নির্যাতন রোধ ও যৌতুক প্রথা নির্মুলে সচেতনতা সৃষ্টিতে সহায়তা।

      (জ) সদস্যদের বয়স্ক শিক্ষা, স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও পরিবার পরিকল্পনা ইত্যাদি বিষয়ে পরামর্শ ও সেবা।

      (ঝ) বৃক্ষরোপন ও স্যানিটেশন সম্পর্কে সচেতনতা বৃদ্ধি কল্পে পরামর্শ ও সহযোগিতা।

      (ঞ) অস্বচ্ছল মুক্তিযোদ্ধা ও তাঁদের পোষ্যদের আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে নামমাত্র সেবা মূল্যের বিনিময়ে ঋণ প্রদান ।

  (ট) গ্রামীন দরিদ্র মানুষের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে সহযোগিতা প্রদান এবং গ্রামীন নেতৃত্বের বিকাশ ও দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে সম্পৃক্তকরণ ।

      (ঠ) উপজেলায় বসবাসরত যে কোন ব্যক্তিকে সেবা সংক্রান্ত তথ্য প্রদানে এ অফিস প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ।

ছবি নাম মোবাইল
মোঃ জহির উদ্দিন ০১৭১২৬৬২৬৪২

ছবি নাম মোবাইল
মোঃ জহির উদ্দিন ০১৭১২৬৬২৬৪২

গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্পসমূহ

 

পল্লী জীবিকায়ন প্রকল্প-২

১। বৃত্তহীন/ মহিলা বৃত্তহীন সমবায় সমিতি গঠন

২। সমবায়ীদের প্রশিক্ষন

৩। সমবায়ীদের মধ্যে ঋণ বিতরন ও আদায়

৪। দারিদ্র বিমোচনে আত্বসামাজিক উন্নয়ন

দৌলতপুর উপজেলা কুষ্টিয়া জেলার অধীনে একটি উপজেলা। দৌলতপুর উপজেলার আয়তন ৪৬১ বর্গ কিলোমিটার। এর উত্তরে বাঘা ও লালপুর, দক্ষিণে গাংনী ও মিরপুর, পুর্বে ভেড়ামারা ও মিরপুর উপজেলা এবং পশ্চিমে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ। মাথাভাঙ্গা ও পদ্মা এই উপজেলার প্রধান নদী। এছাড়া হিসনা নামের আরো একটি নদী দৌলতপুর উপজেলার মাঝ দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে।

১৯৮৩ সালে দৌলতপুর থানাকে উপজেলা হিসেবে ঘোষনা করা হয়। দৌলতপুর উপজেলায় ১৪টি ইউনিয়ন, ১৬১টি মৌজা ও ২৪২টি গ্রাম রয়েছে।

দৌলতপুর উপজেলার শিক্ষিতের হার ২০.৫%; যার মধ্যে ২৫% পুরুষ ও ১৫.৭% মহিলা। এই উপজেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগূলোর মধ্যে রয়েছেঃ মহাবিদ্যালয়ঃ ১১ টি, মাধ্যমিক বিদ্যালয়ঃ ৪৫ টি, সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ঃ ১০৫ টি, বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ঃ ৮২ টি, মাদ্রাসাঃ ৩৫টি, ভকেশনাল প্রশিক্ষন কেন্দ্রঃ ১ টি এবং এতিমখানাঃ ১ টি

কৃতী ব্যক্তিদের ভিতরে আছেনঃ

১। শাহ আজিজুর রহমানঃ বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী। শাহ আজিজুর রহমান কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলাই জন্মগ্রহন করেন।

উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা দৌলতপুর উপজেলা ইউ,বি,সি,সি,এ লি: (বি,আর,ডি,বি) দৌলতপুর, কুষ্টিয়া

দৌলতপুর উপজেলা কুষ্টিয়া জেলার অধীনে একটি উপজেলা। দৌলতপুর উপজেলার আয়তন ৪৬১ বর্গ কিলোমিটার। এর উত্তরে বাঘা ও লালপুর, দক্ষিণে গাংনী ও মিরপুর, পুর্বে ভেড়ামারা ও মিরপুর উপজেলা এবং পশ্চিমে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ। মাথাভাঙ্গা ও পদ্মা এই উপজেলার প্রধান নদী। এছাড়া হিসনা নামের আরো একটি নদী দৌলতপুর উপজেলার মাঝ দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে।

১৯৮৩ সালে দৌলতপুর থানাকে উপজেলা হিসেবে ঘোষনা করা হয়। দৌলতপুর উপজেলায় ১৪টি ইউনিয়ন, ১৬১টি মৌজা ও ২৪২টি গ্রাম রয়েছে।

দৌলতপুর উপজেলার শিক্ষিতের হার ২০.৫%; যার মধ্যে ২৫% পুরুষ ও ১৫.৭% মহিলা। এই উপজেলার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগূলোর মধ্যে রয়েছেঃ মহাবিদ্যালয়ঃ ১১ টি, মাধ্যমিক বিদ্যালয়ঃ ৪৫ টি, সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ঃ ১০৫ টি, বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ঃ ৮২ টি, মাদ্রাসাঃ ৩৫টি, ভকেশনাল প্রশিক্ষন কেন্দ্রঃ ১ টি এবং এতিমখানাঃ ১ টি

কৃতী ব্যক্তিদের ভিতরে আছেনঃ

১। শাহ আজিজুর রহমানঃ বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী। শাহ আজিজুর রহমান কুষ্টিয়া জেলার দৌলতপুর উপজেলাই জন্মগ্রহন করেন।